হযরত কেবলার বংশ পরিচয়

কোরাইশ বংশীয় মদিনাবাসী মহামানব হযরত মোহাম্মদ মোস্তফা ছাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়াসাল্লামের পবিত্র বংশধর নয়নমনি হযরত ইমাম হাসান  ও হোছাইন (র:) ছিলেন। এই পবিত্র দুই ধারায় নূর-নবী এশিয়ার প্রান্তরে আরবের বক্ষে ধীর গতিতে প্রসার লাভ করিয়া আসিতেছিলেন। প্রকৃতির কি বিচিত্র কৌশল ! কালক্রমে আরব পারস্য সাগর উপকুলে বাগদাতের অন্তর্গত জিলান শহরে দুই পবিত্র ধারার শুভ মিলন হয়। ইহাতে আবির্ভাব হয় অলিকুল শিরোমণি কুতুবে রব্বানী মাহবুবে ছোবহানী গাউছুল আজম হযরত মহিউদ্দিন আব্দুল কাদের জিলানী আলহাছানী ওয়াল হোছাইনী রাজিয়াল্লাহু আনহু। তাহার পিতৃকুল হাছানী ও মাতৃকুল হোছাইনী ছিল।

হযরত আহমদ উল্লাহ্‌ (ক:) এর রওজা

এই মিশ্রিত শক্তিশালী ধারা আরব দেশ অতিক্রম করিয়া মুলকে আজমের প্রাঙ্গণে এশিয়ার প্রাচ্য দেশে নানা স্থানে ছড়াইয়া পড়ে। স্বভাবত: তাহার নবী প্রদত্ত হেদায়তী লীলায় সুদক্ষ। ধর্মীয় নেত্রিত্বই বংশীয় সৈয়দী মিরাছ।

হেদায়েত ও এমামতী উপলক্ষে তাহাদের কেহ কেহ দিল্লি সম্রাটের আমন্ত্রণক্রমে দিল্লী শাহী মসজিদের এমাম, হেদায়ত কার্য ও কাজী পদে নিযুক্ত থাকেন। কালক্রমে তৎকালীন বাংলার রাজধানী গৌড় নগরে মুসলিম নবাব কর্তৃক আমন্ত্রিত হইয়া এমামতী ও কাজীর কার্য পরিচালনা করেন।

সৈয়দ হামিদ উদ্দিন গৌড়ী নামক তাঁহাদেরই এজ কৃতি সন্তান গৌড় নগরে বিচারালয়ে কাজী পদে নিয়োজিত হন। এক সময় গৌড় নগরে ভীষন মহামারীর ফলে প্রায় জনশূন্য হইয়া পড়ে। এই সময় খ্রিশট্রিও ১৫৭৫ সনে কাজী সৈয়দ হামিদ উদ্দিন গৌড়ী হেদায়তের সর্বোত্তম মঞ্চ খোদার অদ্বিতিয় শশান্তি নিকেতকন চট্রগ্রামে শুভ পদার্প্ন করেন। তিনি পটিয়া থানার অনর্গত কাঞ্চন নগরে বসতি স্থাপন করেন এবং হেদায়েত ও এমামতী কার্যেরত থাকেন। তথায় তাঁহার নামানুসারে হামিদ্গাও নামক একটি গ্রাম আছে। তাহাঁরই এক পুত্র সন্তান সৈয়দ আব্দুল কাদের (র:) ফটিকছড়ি থানার অন্তর্গত আজিম নগর গ্রামে এমামতি উপলক্ষে আগমন করিয়া তথায় বসতি স্থাপন করেন। তাঁহার পুত্র সৈয়দ আতাউল্লাহ এবং তৎপুত্র সৈয়দ তৈয়বউল্লাহ্‌ উক্ত আজিম নগরেই বসতি ও সন্তানের নাম মাওলানা সৈয়দ মতিউল্লাহ। তিনি মাইজভান্ডার গ্রামে আসিয়া বসিতি স্থাপন করেন। তিনি নিতান্ত দ্বীনদার মোত্তাকী আলেম ছিলেন। তাহাকে সকলে অতি সম্মান ও ভক্তি করিত, তাঁহারই পবিত্র ঔরসে-বিশ্ব অলি গাউছুল আজম মাইজভান্ডারী মাওলানা শাহ্‌ ছুফী সৈয়দ আহমদ উল্লাহ্‌ (ক:) জন্মগ্রহণ করেন। সৌভাগ্যবতি সৈয়দা খায়েরউন্নেছা বিবিই হযরত গাউছুল আজমের জননী হইয়া বিস্ব-বরণ্যা হইতে পারিয়াছেন। মা ফাতেমা খায়েরউন্নেছা (র:) এর উপাধী নাম খায়েরূন্নেছায় অলংকৃত হইয়াছেন। তাঁহারাই পবিত্র নামে হাসর ময়দানে গাউছুল আজম মাইজভান্ডারীকে আল্লাহ্‌পাক ডাকিয়া লইবেন।

Share this Story
Load More Related Articles
Load More By Muhammad Sabbir Alam
Load More In মাইজভান্ডার দরবার শরীফ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Check Also

গাউছুল আজম মাইজভান্ডারী শাহ্‌ এমদাদিয়া রাজাপুর দায়রা শাখার মাসিক মাহফিল (28/07/2017)

Share

About Muhammad Sabbir Alam

আমি শাহ্‌ সূফী সৈয়দ দেলাওর হোসাইন মাইজভান্ডারীর গোলাম মিরসরাই উপজেলার মিঠানালা-রাজাপুর দায়রা শাখার সভাপতি মোহাম্মদ কবির আলম ভান্ডারীর ছোট ছেলে মোহাম্মদ সাব্বির আলম। আমি আমার মনিব সৈয়দ এমদাদুল হক মাইজভাণ্ডারী (ম. জি. আ.) বাবাজানের একজন আদনা গোলাম হওয়ার চেষ্টা করতেছি।

About Author


আমি সৈয়দ এমদাদুল হক মাইজভাণ্ডারী বাবাজানের একজন এদনা গোলাম হওয়ার চেষ্টা করছি। আর হযরত কেবলার দয়ায় মাইজভান্ডারের গোলামী করার চেষ্টা করছি।